ইমেইল মার্কেটিং এর জন্য কিভাবে একটি ইমেইল তৈরি করতে হয়?

ইমেইল মার্কেটিং এমন একটি মার্কেটিং পদ্ধতি যার মাধ্যমে পণ্য বিক্রয় করা অনেক সহজ। তবে আপনি যদি ভালো ভাবে ইমেইল তৈরি করতে না পারেন তাহলে সেই পরিমান সাফল্য পাবেন না। আপনার যত ভালো ইমেইল লিস্ট থাকুক না কেন অবশ্যই ইমেইলটিতে কিছু নির্দিষ্ট বিষয় থাকতে হবে। সেই বিষয়গুলো ছাড়া ইমেইলটি পরিপূর্ণ হয় না।

১. আকর্ষনীয় সাবজেক্ট লাইনঃ

আপনি যদি অনেক ভালো ইমেইল তৈরি করেনও তারপরও আপনার ইমেইলটি সফলতা পাবে না যদি না একটি ভালো সাবজেক্ট লাইন না থাকে। কারণ সাবজেক্ট লাইনটি প্রথম প্রদশিত হয়। তাই সর্বপ্রথম সাবজেক্ট লাইনটিতে গুরুত্ব দিতে হবে । একটি ভালো সাবজেক্ট লাইন লিখতে কিছু নির্দিষ্ট বিষয় মাথায় রাখতে হয়।

~ সাবজেক্ট লাইনটি ছোট হতে হবেঃ
ইমেইল এর ক্ষেত্রে বড় লাইন পড়তে সময় লাগে তাই মানুষ স্বভাবত একটু এড়িয়ে যেতে চায়। আবার এমন ছোট যেন না হয় যা দিয়ে পরিষ্কার কোন ধারনা পাওয়া না যায়।
~ সতর্কতার সাথে শব্দ সিলেক্ট করুনঃ
সাবজেক্ট লাইন লিখতে অবশ্যই সতর্কতা অবলম্বন করুন । অপ্রয়োজনীয় কোন শব্দ ব্যবহার করবেন না। যেই শব্দ গুলো ব্যবহার করলে অল্প কথায় সম্পূর্ন অর্থ প্রকাশ পাবে তেমন শব্দ ব্যবহার করার চেস্টা করুন।
~ লাভ বা সুবিধা দেখানঃ
সাবজেক্ট লাইনটি এমন করার চেষ্টা করুন যার মাধ্যমে কাস্টমার বা গ্রহক তার লাভ বা সুবিধা দেখতে পারবে।

২. Call-To-Action:

মার্কেটিং এর জন্য যদি কোন ইমেইল ব্যবহার করেন এবং তার মধ্যে Call-To-Action ব্যবহার না করেন তাহলে সেই ইমেইল আর মার্কেটিং এর ইমেইল থাকে না। সেটি হয়ে যায় একটি অতি সাধারন ইমেইল। সাবজেক্ট লাইনের মত Call-To-Action ও এমন ভাবে ব্যবহার করতে হবে যার মাধ্যমে গ্রাহক বা কাস্টমার তার লাভ বা সুবিধা খুজে পায়। তাহলেই সে আপনার Call-To-Action অনুসরন করবে। অবশ্যই এটি সংক্ষিপ্ত হতে হবে। পাঠকদের এমন কিছু অনুভব করাতে চেষ্টা করুন যার মাধ্যমে তারা মনে করে এই লিঙ্কে ক্লিক না করলে তারা কিছু পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবে। তাহলেই আপনার ইমেইলের ক্লিক বাড়বে আর আপনার বিক্রয়।

৩. মোবাইলের উপযুক্ত করে ইমেইল তৈরি করুনঃ

মোবাইলের উন্নয়নের ফলে এখন জরুরী ইমেইল যখন তখন দেখার জন্য মানুষ মোবাইলকে ব্যবহার করে। এখন প্রায় ৭০ ভাগের বেশি ইমেইল মোবাইলের মাধ্যমে দেখা হয়। তাই যদি আপনার ইমেইলটি রেস্পন্সিব না হয় তাহলে আপনি অনেক কাস্টমার হারাবেন। সে জন্য আপনাকে ইমেইলটি এমন ভাবে তৈরি করতে হবে যেন ইমেইলটি যেকোন সাইজের স্মার্ট ফোনে পরিষ্কার ভাবে দেখা যায়। এছাড়া চেস্টা করবেন ইমেইলে ছোট সাইজের ছবি ব্যবহার করতে। যাতে সহজে ইমেইল লোড হয়। কারণ বেশি সময় নিয়ে লোড হওয়া ইমেইল গুলো অনেক কাস্টমার হারায়।

৪. স্প্লিট টেস্ট করুনঃ

ইমেইল মার্কেটিং এ সফলতা পাওয়ার একটি গুরুত্বপূর্ন পদক্ষেপ হল ইমেইলের স্প্লিট টেস্ট করা। হতে পারে স্প্লিট টেস্ট কথাটি আপনার কাছে নতুন কিন্তু এটি ইমেইল মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ শব্দ।
ইমেইল পাঠানোর পূর্বে আপনি আপনার ইমেইলকে কয়েকটি ফরমেটে তৈরি করবেন। তারপর সেই ইমেইলকে আলাদা ভাবে কিছু কিছু ইমেইলে পাঠাবেন। যেই ইমেইলটির মাধ্যমে সব চেয়ে ভালো ফলাফল পাবেন সেই ইমেইলটি সম্পূর্ন মার্কেটিং এর জন্য ব্যবহার করবেন। এই টেস্ট ইমেইলে ব্যবহার করতে পারেন ভিন্ন ভিন্ন সাবজেক্ট লাইন, Call-To-Action, ছবি, হেডলাইন ইত্যাদি।

৫. ব্যক্তিত্বকে অনুভব করাঃ

একটি ইমেইল তৈরি করার আগে আপনি যদি আপনার সাবস্ক্রাইবারদের ব্যক্তিত্বকে বুঝতে পারেন, ব্যক্তিত্বকে গুরুত্ব দিতে পারেন তাহলে আপনার ইমেইলের সফলতার ভাগ অনেক বৃদ্ধি পাবে। সে জন্য ইমেইল তৈরির পূর্বে আপনার জানা উচিত কারা আপনার সাবস্ক্রাইবার, তারা কোথায় থাকেন, তাদের আগ্রহ ইত্যাদি। আপনি যদি এই বিষয়গুলো মেনে একটি ইমেইল তৈরি করতে পারেন তা তাদের অনূভুতিকে ছুতে পারবে যার ফলে সাবস্ক্রাইবার আপনার ইমেইলটি এড়িয়ে যেতে পারবে না । যেমন আমেরিকার জন্য কোন ইমেইল তৈরি করতে তাদের সংস্কৃতির সাথে যুক্ত বিভিন্ন বিষয় যা আপনার সাবস্ক্রাইবারা পছন্দ করে তা উল্লেখ করতে পারেন। আবার আপনি চাইলে কাস্টমার্দের পূর্ববর্তী ক্রয় বিক্রয় এর উপর ভিত্তি করে তাদের আচরণ বুঝে ইমেইল তৈরি করতে পারেন। সে জন্য ইমেইলটি এমন ভাবেই তৈরি করুন যার মাধ্যমে সাবস্ক্রাইবারের ব্যক্তিত্বের সাথে যুক্ত হওয়া যায়।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *